বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপে মাহমুদউল্লাহ একাদশ ও নাজমুল একাদশের ম্যাচে প্রশ্নের মুখে পড়েছে আম্পায়ারিং। ইমরুল কায়েস ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের উইকেট নিয়ে আম্পায়ারদের সিদ্ধান্ত প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে মাহমুদউল্লাহ একাদশের ক্রিকেটারদের কাছে। মাঠেই দুই ক্রিকেটার আম্পায়ারের সিদ্ধান্তে অসন্তোষ প্রকাশ করেন।

মাহমুদউল্লাহ একাদশ বনাম নাজমুল একাদশ
আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেন ইমরুল। ছবি : বিডিক্রিকটাইম

২৬৫ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে দলীয় ১৬ রানে ব্যক্তিগত ৪ রানের মাথায় সাজঘরে ফেরেন ইমরুল। আল আমিন হোসেনের বলে তাকে তালুবন্দী করেন মুশফিকুর রহিম। যদিও ব্যাটে বলের স্পর্শ হয়নি- এমন দাবিতে আম্পায়ারের আউটের সংকেতের পরও অনেকক্ষণ মাঠে দাঁড়িয়ে ছিলেন ইমরুল।





আম্পায়ারিং নিয়ে অসন্তোষের শেষ হয়নি এখানেও। লিটন দাস (২৭) ও মুমিনুল হককে (১৩) হারিয়ে দলের হাল ধরার চেষ্টা করেছিলেন অধিনায়ক রিয়াদ। ব্যক্তিগত ১১ ও দলীয় ৬৯ রানের মাথায় চতুর্থ ব্যাটসম্যান হিসেবে সাজঘরে ফেরেন তিনি। নাসুমের বলে আম্পায়ার এলবিডব্লিউয়ের সংকেত দিলেও রিয়াদ অসন্তোষ প্রকাশ করেন। ইমরুলের মত তিনিও আউটের সংকেত পাওয়ার পর বেশ কিছুক্ষণ ক্রিজে দাঁড়িয়ে ছিলেন।

এই প্রতিবেদন লেখার সময় মাহমুদউল্লাহ একাদশ ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়েছে। ১৯ ওভার শেষে ৫ উইকেট হারিয়ে দলটির সংগ্রহ ৭৮ রান। নুরুল হাসান সোহান ৫ ও সাব্বির রহমান শূন্য রানে ক্রিজে রয়েছেন।






এর আগে মিরপুরে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ২৬৪ রান জড়ো করে নাজমুল একাদশ। যদিও শুরুতেই সৌম্য সরকার, নাজমুল হোসেন শান্ত ও পারভেজ হোসেন ইমনকে হারিয়ে বিপদে পড়ে গিয়েছিল দলটি। চতুর্থ উইকেটে ১৪৭ রানের পার্টনারশিপ গড়ে দলের বিপর্যয় প্রতিহত করেন মুশফিকুর রহিম ও আফিফ হোসেন ধ্রুব।

আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান মুশফিকের চেয়েও এদিন বেশি উজ্জ্বল ছিলেন আফিফ। ১০৮ বলের মোকাবেলায় ৯৮ রান করেন ১২টি চার ও ১টি ছক্কার সহায়তায়। মুশফিকের সাথে ভুল বোঝাবুঝিতে রান আউট হন শতক থেকে মাত্র ২ রান দূরে থেকে। মুশফিকও ফেরেন আফিফের পরপরই। আফিফ সাজঘরে ফেরার পর অর্ধশতক পূর্ণ করা উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান ৯২ বল কঘেলে ৫২ রান করেন, যে ইনিংসে ছিল মাত্র ১টি চার।

শেষদিকে ইরফান শুক্কুর ৩১ বলে ৪৮ রান করে অপরাজিত থাকেন। এছাড়া তৌহিদ হৃদয় ২৭ রান করেন। মাহমুদউল্লাহ একাদশের পক্ষে রুবেল হোসেন ৩টি, এবাদত হোসেন ২টি ও সুমন খান ১টি উইকেট শিকার করেন।

স্কোরকার্ড 

টস : মাহমুদউল্লাহ একাদশ

নাজমুল একাদশ : ২৬৪/৮ (৫০ ওভার)

ইমন ১৯ (২১), সৌম্য ৮ (৪), শান্ত ৩ (১৪), মুশফিক ৫২ (৯২), আফিফ ৯৮, হৃদয় ২৭ (২৯), শুক্কুর ৪৮* (৩১), রিশাদ ১, তাসকিন ০, নাসুম ০*

এবাদত ১০-০-৬০-২, রুবেল ১০-২-৫৩-৩, সুমন ৯-০-৫২-১, রকিবুল ১০-০-৩২-০, মিরাজ ৯-০-৪৮-১, রিয়াদ ২-০-১৮-০

জয়ের জন্য মাহমুদউল্লাহ একাদশের প্রয়োজন ২৬৫ রান।

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

 

The post মাহমুদউল্লাহদের ব্যাটিং বিপর্যয়, আম্পায়ারিং নিয়ে অসন্তোষ appeared first on বিডিক্রিকটাইম.

Leave a Reply

%d bloggers like this: