২০১৯ বিশ্বকাপের ফাইনালের পর সুপার ওভার টাই হলে বাউন্ডারি সংখ্যায় এগিয়ে থাকা  দলকে জয়ী হিসেবে ঘোষণা করার নিয়ম আসে আলোচনায়। এরপর তা পরিবর্তন করে ঘোষণা দেওয়া হয়, সুপার ওভার টাই হলে ফের সুপার ওভার আয়োজিত হবে। সেই নিয়মের বাস্তবায়ন  প্রথমবারের মতো ঘটল ক্রিকেট ইতিহাসে।

ইতিহাসে প্রথমবারের মতো এক ম্যাচে দুই সুপার ওভার

আইপিএলে কিংস ইলিভেন পাঞ্জাব ও মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স মধ্যকার ম্যাচের নিস্পত্তি হয়েছে দুই সুপার ওভারে। খেলা টাই হওয়ার পরে প্রথম সুপার ওভারে দু’দলই করে পাঁচ রান করে। এরপর দ্বিতীয় সুপার ওভারে কিংস ইলিভেন পাঞ্জাবকে ১২ রানের লক্ষ্য দিলে ক্রিস গেইল আর মায়াঙ্ক আগারওয়াল মিলে চার বলেই তা টপকে যান।

টস জিতে ব্যাটিং করতে নেমে শুরুতে আর্শদীপ সিং ও মোহাম্মদ শামির বোলিং টোপের মুখে পড়ে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। তৃতীয় ওভারেই আর্শদীপের বলে প্যাভিলিয়নে ফিরে যান রোহিত শর্মা (৯)। পরের ওভারে বোল্ড হন সূর্যকুমার যাদব। পাওয়ারপ্লের শেষ ওভারে আর্শদীপের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হন ইশান কিষাণ। প্রথম ছয় ওভারেই তিন উইকেট হারিয়ে ফেলে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স।

এরপর ক্রুনাল পান্ডিয়াকে নিয়ে হাল ধরেন কুইন্টন ডি কক। চতুর্থ উইকেটে ৫৮ রান যোগ করেন ডি কক আর ক্রুনাল। ৩০ বলে ৩৪ রান করে রাভি বিষ্ণইয়ের বলে আউট হন ক্রুনাল। এক ওভার পরেই শামির বলে ফিরে যান হার্দিক পান্ডিয়া। পরের ওভারে আঘাত হানেন ক্রিস জর্ডার। ৪৩ বলে ৫৩  রান করে আউট হন ডি কক। দ্রুত তিন উইকেট হারিয়ে ফের চাপে পড়ে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স।

সেখান থেকে দলকে বড় স্কোরের দিকে নিয়ে যান কিরন পোলার্ড আর নাথান কোল্টার-নাইল। তাদের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে ১৭৬ রানের পুঁজি পায় মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। দুজনই খেলেন ১২ বল করে। পোলার্ড করেন ৩৪ রান আর কোল্টার-নাইল করেন ২৪ রান। পোলার্ডের ইনিংসে ছিল ১ চার ও ৪ ছক্কা। কোল্টার-নাইল মারেন ৪টি চার।

জবাব দিতে নেমে চতুর্থ ওভারে নিজেদের প্রথম উইকেট হারায় কিংস ইলিভেন পাঞ্জাব। ১০ বলে ১১ রান করে জাসপ্রিত বুমরাহর বলে বোল্ড হন তিনি।  ক্রিস গেইল ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠার আগেই তার উইকেট তুলে নেন রাহুল চাহার। ২১ বলে ২৪ রান করেন গেইল। নিকোলাস পুরানও ঝড় তুলেছিলেন। কিন্তু সেটাও দীর্ঘস্থায়ী হয়নি। ১২ বলে ২৪ রান করে বুমরাহর দ্বিতীয় শিকার হয়ে ফিরে যান পুরান। পরের ওভারেই গ্লেন ম্যাক্সওয়েলকে ফিরিয়ে দেন চাহার। রানের খাতা খুলতে পারেননি ম্যাক্সওয়েল।

এরপর দীপক হুদা আর লোকেশ রাহুল মিলে গড়েন ৩৮ রানের জুটি। সেই জুটি জয়ের পথে রাখে কিংস ইলিভেন পাঞ্জাবকে। কিন্তু দারুণ এক ইয়র্কারে রাহুলকে বুমরাহ বোল্ড করলে জমে ওঠে ম্যাচ। ৫১ বলে ৭৭ রান করেন রাহুল। রাহুলের বিদায়ের পর হুদার সঙ্গে যোগ দেন ক্রিস জর্ডান।

শেষ ওভারে ৯ রান দরকার ছিল পাঞ্জাবের। ট্রেন্ট বোল্টের করা প্রথম বলে এক রান নেন হুদা। দ্বিতীয় বলে দারুণ এক ইয়র্কার জর্ডানের ব্যাটের কানা ছুঁয়ে চলে যায় বাউন্ডারিতে। পরের তিন বলে রান হয় দুই। শেষ বলে দুই রান প্রয়োজন হলে দ্বিতীয় রান নিতে গিয়ে রান আউট হন জর্ডান।

প্রথম সুপার ওভারে দুর্দান্ত বোলিং করেন মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের জাসপ্রিত বুমরাহ। কিংস ইলিভেন পাঞ্জাবকে মাত্র পাঁচ রানে আটকে দেন তিনি। কিংস ইলিভেন পাঞ্জাবের হয়ে ব্যাটিংয়ে নামেন রাহুল ও পুরান। পুরান আউট হলে নামেন হুদা।

বোলিংয়ে আনা হয় মোহাম্মদ শামিকে। একের পর এক ইয়র্কার করতে থাকেন তিনি। শেষ বলে প্রয়োজন ছিল দুই রান। একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটে এখানেও। দ্বিতীয় রান নিতে গিয়ে রান আউট হন কুইন্টন ডি কক।

দ্বিতীয় সুপার ওভারে প্রথমে ব্যাটিং করে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। ক্রিস জর্ডানের করা প্রথম দুই বলে রান হয় তিন। এরপর চার মারেন পোলার্ড। পরের বলে ওয়াইড দেন জর্ডান। চতুর্থ বলে দুই  রান নিতে গিয়ে বোলিং প্রান্তে রান আউট হয়ে যান হার্দিক পান্ডিয়া। পঞ্চম বল ডট হলেও শেষ বলে দুই রান নিয়ে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সকে ১১ রানের পুঁজি দেন কিরন পোলার্ড।

দুই সুপার ওভারে ম্যাচে জয় গেইল-আগারওয়ালদের

১২ রানের লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে বোল্টের প্রথম বলেই ছক্কা মারেন গেইল। পরের বলে প্রান্ত বদল করে স্ট্রাইক দেন আগারওয়ালকে। দুই বলে দুই চার মেরে জয় নিশ্চিত করেন তিনি।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:
মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স ১৭৬/৬, ২০ ওভার
ডি কক ৫৩, পোলার্ড ৩৪*, ক্রুনাল ৩৪*
শামি ২/৩০, আর্শদীপ ২/৩৫

কিংস ইলিভেন পাঞ্জাব ১৭৬/৬
রাহুল ৭৭, পুরান ২৪, গেইল ২৪
বুমরাহ ৩/২৪, চাহার ২/৩৩

কিংস ইলিভেন পাঞ্জাব সুপার ওভারে জয়ী।


বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।


 

The post দুই সুপার ওভারের ম্যাচে জয় গেইল-আগারওয়ালদের appeared first on বিডিক্রিকটাইম.

Leave a Reply

%d bloggers like this: