বিসিবি প্রেসিডেন্টস কাপে শতকের খুব কাছে গিয়েও আক্ষেপ নিয়ে ফিরতে হয়েছে নাজমুল একাদশের তরুণ অলরাউন্ডার আফিফ হোসেন ধ্রুবকে। তার ৯৮ রানের ইনিংসে ভর করে দল বিশাল জয় পেলেও শতক হাতছাড়ার আক্ষেপে পুড়ছেন আফিফ।

আফিফের কণ্ঠে সেঞ্চুরি হাতছাড়ার আক্ষেপ

মুশফিকুর রহিম তখন একপ্রান্ত আগলে রেখে খেলছেন। আফিফ অর্ধ-শতকের পরই চড়াও হলেন মাহমুদউল্লাহ একাদশের বোলারদের উপর। অর্ধ-শতক পূর্ণ করে পৌঁছে গেলেন শতকের খুব কাছেও, কিন্তু আগে ক্রিজে নামা মুশফিক তখন অর্ধ-শতকও পূর্ণ করতে পারেননি।






স্বভাবতই দল তাকিয়ে ছিল আফিফের দিকে। কিন্তু এমন সময় মুশফিকের ডাকে সাড়া দিতে গিয়ে ভুল বোঝাবুঝিতে রান আউট হন আফিফ। ১০৭ বলে গড়া ৯৮ রানের ইনিংসে ছিল ১২টি চার ও ১টি ছক্কা। প্রবল চাপের মুখে ব্যাট করতে নেমে প্রতিপক্ষ দলের পরীক্ষিত বোলারদের সামনে এই ইনিংস খেলা নিশ্চয়ই চাট্টিখানি কথা নয়। রানের সংখ্যাকে তিন অঙ্কে নিয়ে যেতে না পারায় তাই আক্ষেপ ঝরল আফিফের কণ্ঠে।

আফিফের এই ইনিংস তাকে এনে দিয়েছে ম্যাচসেরার পুরস্কার। একইসাথে পেয়েছেন ম্যাচের সেরা ব্যাটসম্যানের খেতাবও। কিন্তু দুই পুরস্কারেও মন ভরেনি। এত কাছ থেকে শতক হাতছাড়া হতে দেখলে আক্ষেপ হওয়াটাই যে স্বাভাবিক!





আফিফ বলেন, ‘একটু খারাপ তো লাগছেই। কিন্তু দিন শেষে দলের জয়টাই বড়।’

২১ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার জানান, দীর্ঘ সময় উইকেটে থাকার পরিকল্পনা থেকেই তার এই বাজিমাত। আগের ম্যাচে মুশফিকের করা শতকের পর আফিফের এই ইনিংসই টুর্নামেন্টের সবচেয়ে বড় ইনিংস। মুশফিকের সেই ইনিংসে দল জয়ের দেখা পায়নি, তাই আসরে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে কার্যকরী ইনিংসটি আফিফেরই।

তিনি বলেন, ‘মুশফিক ভাই তখন ক্রিজে ছিল। তাই পরিকল্পনা ছিল উইকেট না হারিয়ে যতক্ষণ ক্রিজে টিকে থাকা যায়। এই পরিকল্পনা নিয়েই ব্যাটিং করেছি।’

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

 

The post আফিফের কণ্ঠে সেঞ্চুরি হাতছাড়ার আক্ষেপ appeared first on বিডিক্রিকটাইম.

Leave a Reply

%d bloggers like this: